বিয়ের কথা বলে চা বাগানে নিয়ে কিশোরী প্রেমিকাকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ

পঞ্চগড়ের আটোয়ারী উপজেলায় বিয়ের কথা বলে ডেকে নিয়ে দশম শ্রেণির শিক্ষার্থী এক কিশোরীকে গণধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে৷ শনিবার (৬ আগস্ট) গভীর রাতে জেলার তেঁতুলিয়া উপজেলার পুরাতন এলাকার বন্দরপাড়া গ্রামের একটি চা বাগানে এ ঘটনা ঘটে৷

ধর্ষণের শিকার কিশোরীর বাড়ি জেলার তেঁতুলিয়া উপজেলায়৷ সে এখন পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

জানা গেছে, মোবাইল ফোনে ওই কিশোরীর সাথে প্রেমের সম্পর্ক হয় হাসান নামে এক যুবকের। সম্পর্ক গভীর হলে গত ১ বছর ধরে ওই কিশোরীর সাথে প্রেমিক হাসানের নিয়মিত দেখা-সাক্ষাৎ হতো। শনিবার সকালে বিয়ের কথা বলে ওই কিশোরীকে স্কুল থেকে ফোন করে ডেকে পঞ্চগড় নিয়ে যান হাসান৷ সেখান থেকে কাজী অফিসে নিয়ে যাওয়ার কথা বলে রাতে বন্দরপাড়া গ্রামে সড়কের পাশে চা বাগানে নিয়ে যাওয়া হয় তাকে। সেখানে প্রথমে প্রেমিক হাসান ও তার বন্ধু সবুজ কিশোরীকে ধর্ষণ করেন। এ সময় আরও কয়েকজন সেখানে উপস্থিত হলে হাসান ও সবুজ ঘটনাস্থল থেকে দ্রুত পালিয়ে যান। পরে কিশোরীকে একা পেয়ে তারাও ধর্ষণ করে। এক পর্যায়ে কিশোরীকে ফেলে তারাও পালিয়ে যায়।

গভীর রাতে মান্নান নামে এক পথচারী কিশোরীকে অসুস্থ অবস্থায় উদ্ধার করে বন্দর পাড়া গ্রামের নায়েব আলীর বাড়িতে নিয়ে যান। পরে কিশোরী সব খুলে বললে নায়েব আলী তার খালুকে খবর দেন। ভোর রাতে খালু গিয়ে তাকে পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন। এ ঘটনায় আটোয়ারী থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

পঞ্চগড় জেলা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ইউসুফ আলী জানান, অভিযুক্তদের গ্রেফতারে অভিযান শুরু হয়েছে৷ ইতোমধ্যে কয়েকজন ধরা পড়েছে বলেও জানান এই পুলিশ কর্মকর্তা। অভিযান শেষে বিস্তারিত জানানো হবে।