একাধিক অজ্ঞাত ফোনকল, ফের ডিবি কার্যালয়ে ইমন

একটি অডিও ক্লিপ ভাইরাল হয়েছে এবং বলা হচ্ছে, ওই অডিও ক্লিপের কথোপকথন ডা. মুরাদ হাসান, চিত্রনায়িকা মাহিয়া মাহি ও চিত্রনায়ক ইমনের। এ ঘটনার পর রাজধানীর মিন্টো রোডে ডিবি কার্যালয়ে গিয়েছিলেন ইমন। সোমবার রাত ৮টার দিকে ডিবির যুগ্ম কমিশনার মোহাম্মদ হারুন অর রশীদের সঙ্গে তার কার্যালয়ে দেখা করেন অভিনেতা ইমন।

কেনো ডিবি কার্যালয়ে গিয়েছিলেন? ইমন জানান, ডা. মুরাদ হাসানের সঙ্গে কথোপকথনের অডিও নিয়ে ভুল–বোঝাবুঝির অবসানে আইনি পরামর্শ নিতে ডিবি অফিসে গিয়েছিলেন।

মঙ্গলবার দুপুর ফের ডিবি কার্যালয়ে গেলেন মামনুন ইমন। এ বিষয়ে ইমন ডিবি কার্যালয় থেকেই কালের কণ্ঠকে বললেন, গতকাল রাত থেকে একাধিক অজ্ঞাত ফোন আসা শুরু হয়েছে আমার ফোনে। এজন্য ডিবি কার্যালয়ে এসেছি। হারুন ভাইকে জানিয়েছিলাম। উনি আমাকে বলেছিল এসে নম্বরগুলো যেন দেখিয়ে যাই। এজন্যই এসেছি। চলে যাব একটু পরেই।

এর আগে ইমন বলেছিলেন, ‌‘হারুন ভাই আমার পূর্ব পরিচিত। তার সঙ্গে এর আগে নানা সময়ে আমার দেখা ও কথা হয়েছে। মন্ত্রীর সঙ্গে কথোপথনের কল রেকর্ড যখন ফাঁস হয়, তারপর সারাদিন এ নিয়ে আমাকে কথা বলতে হয়েছে। আমি নিজের অবস্থান সবাইকে পরিষ্কার করলেও, অনেক সহকর্মী আমাকে ভুল বোঝেন। কেউ কেউ আবার আমাকে ইঙ্গিত করে ফেসবুকে পোস্টও দেন। এসব আমাকে খুবই বিব্রত করেছে, কষ্ট দিয়েছে।

ইমন বলেন, ফেসবুকে অনেকে আবার আমাকে নিয়ে নেতিবাচক নানা কথাবার্তা বলার চেষ্টা করেছেন। বিপর্যস্ত আমি, তাই হারুন ভাইয়ের সঙ্গে কথা বলতে রাতেই তার অফিসে দেখা করতে যাই। আমার অবস্থান তার কাছে পরিষ্কার করি। এরপর এসব বিষয়ে আমার কী করণীয়, সে ব্যাপারে পরামর্শও চাই। তিনিও আমাকে সেই পরামর্শ দিয়েছেন। এরপর চা খেয়ে আমি চলে আসি।’

ইমন বলেন,‘এটা কিন্তু একদম পরিষ্কার, আমি এই ঘটনার সঙ্গে কোনোভাবে জড়িত নই। রাতে যখন মাহি একটি ভিডিওবার্তা দেয়, বিষয়টি আরও পরিষ্কার হয়। আমিও কিন্তু গতকাল সকাল থেকে সবাইকে বলছি, একজন মন্ত্রী যখন আমাকে ফোন করে এসব কথা বলছেন, আমি শুধু সামাল দিতে ওসব বলেছি।’