কারাবন্দী স্বামীর মাদক কারবার নিয়ন্ত্রণ করতেন স্ত্রী, ইয়াবাসহ গ্রেপ্তার

রাজধানী পল্লবীর ১১ নম্বর সেকশন এলাকা থেকে ৭১ হাজার পিস ইয়াবাসহ তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর (ডিএনসি)। গত বুধবার রাতের অভিযানে শাহাদাত হোসেন, মনি ইসলাম ও জান্নাতুল ফেরদৌস রুপা নামে তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। ডিএনসির কর্মকর্তারা বলছেন, মাদক কারবারী চক্রটির প্রধান রাজু মোল্লা ওরফে সুজন পুলিশের অভিযানে গ্রেপ্তার হয়ে কারাগারে আছে। তার স্ত্রী মনিও আরেকটি মাদক মামলায় গ্রেপ্তার হন। গত ২৬ নভেম্বর জামিনে ছাড়া পেয়ে স্বামীর কারবার শুরু করেন তিনি। সঙ্গে রাজুর ছোট বোন রুপা ও গাড়িচালক শাহাদাতকে নিয়েছেন।

গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে ডিএনসির ঢাকা মেট্টো দক্ষিণ কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে উপ-পরিচালক পারভিন আখতার জানান, সহকারী পরিচালক রাজীব মিনা ও খিলগাঁও সার্কেলের ইন্সপেক্টর ফজলুল হক খানের নেতৃত্বে বুধবার রাতে পল্লবী থানাধীন ১১ নম্বর সেকশনে অভিযান চালিয়ে আলাদাভাবে লুকিয়ে রাখা দু’টি গাড়ির ভেতর থেকে ৭১ হাজার পিস ইয়াবা জব্দ করা হয়। এ সময় শাহাদাত হোসেন, মনি ইসলাম ও জান্নাতুল ফেরদৌস রুপাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

পারভিন আখতার আরো জানান, ইয়াবার চালানটি তারা টেকনাফ থেকে নিয়ে আসে। রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে সেসব সরবরাহ করার পরিকল্পনা ছিল তাদের। তারা একটি সংঘবদ্ধ চক্র। এই চক্রের প্রধান রাজু মোল্লা ওরফে সুজন। তার বিরুদ্ধে মাদক ও অস্ত্র আইনে চারটি মামলা আছে। স্বামীর অবর্তমানে মনি মাদকের কারবার নিয়ন্ত্রণ করছিল। তাকে সহযোগিতা করছিল রুপা ও শাহাদাত। মনির বিরুদ্ধে আগেও শাহ আলী থানাসহ রাজধানীর বিভিন্ন থানায় ছয়টি মামলা হয়েছে। দীর্ঘদিন কারাভোগের পর গত ২৬ নভেম্বর জামিনে মুক্তি পায় মনি। মনি ইসলাম ও তার স্বামী রাজু মোল্লার বিরুদ্ধে ২০১৯ সালে শাহআলী থানায় ডিএনসি আরেকটি মামলা করে।

কর্মকর্তারা জানান, সম্প্রতি পুলিশ ইয়াবাসহ রাজুকে গ্রেপ্তার করেছে। তিনি এখন জেলহাজতে আছেন।